২০১৩ সালে লিনাক্স ও ওপেন সোর্স জগতের ৫টি শীর্ষ গুরুত্বপূর্ন ঘটনা

http://drive.google.com/uc?export=view&id=0B4dfDqcrM72DSE9OTVZ6b0t3TjA
নতুন একটি বছরের শেষ দ্বারপ্রান্তে আমরা উপনীত। ২০১৪ সালের আগমন ধ্বনি আমরা স্পষ্টতঃ টের পেতে শুরু করেছি।  লিনাক্সের উত্থানের জন্য এ বছরটি খুব গুরুত্বপূর্ন।
লিনাক্স কম্পিউটিং এর বেশ কয়েকটি ক্ষেত্র যেমন সার্ভার ও সুপার কম্পিউটিংএ বহু বছর একাধিপত্য বিস্তার করে আছে। কিন্তু ২০১৩ সালে লিনাক্স এবং ওপেন সোর্স সফটওয়্যার উন্নয়ন পদ্ধতি সকল ক্ষেত্রে রাজত্বের পূর্বাভাস সূচনা করেছে যেটা গাড়ি থেকে শুরু করে ক্লাউড সিস্টেম হয়ে গ্রাহক নির্ভর কম্পিউটিংয়ে ও বিস্তৃত হচ্ছে যার জন্য সত্যিকারের ধন্যবাদ পেতে পারে এন্ড্রয়েড এবং ক্রোম ওএস।
আমি সত্যিই অভিভূত ২০১৩ সালে লিনাক্স ও ওপেন সোর্স জগতের এই সামনে এগিয়ে চলার গতিতে।
আসুন আমরা এ বছরে সংঘটিত লিনাক্স ও ওপেন সোর্স জগতে চলমান ঘটনাসমূহের মধ্যে সব থেকে গুরুত্বপূর্ন ৫টি ঘটনার উপর আলোকপাত করি। কিছু বিষয় হয়তো আপনার নজর এড়িয়ে যেতে পারে কিন্তু বিশ্বাস করুন সামনের বছরগুলিতে এগুলি সত্যিকারের প্রভাবক হিসেবে কম্পিউটিং জগতে আলোড়ন সৃষ্টি করবে। আপনি যে ধরনের কম্পিউটিং এ জড়িত থাকুন না কেন ভবিষ্যতে অবশ্যই লিনাক্স ও ওপেন সোর্স সফটওয়্যার ব্যবহারের জন্য আপনার হাতে খড়ি হতে যাচ্ছে এটা বলা যায় এ মূহুর্তে।

১. ওপেন সোর্স সফটওয়্যার উন্নয়ন পদ্ধতি 

বর্তমানে একজন ডেভেলপার ওপেন সোর্স সফটওয়্যার ব্যবহার করবেন না বা ডেভেলপ করবেন না এটা ভাবা খুবই দূরূহ ব্যাপার। এমনকি মাইক্রোসফটের মত কোম্পানিও ওপেন সোর্স উন্নয়নে এর শক্তি নিয়োজিত করছে যেমন-Node.js, একটি টুলস/ফ্রেমওয়ার্ক যা জাভাস্ক্রিপ্টকে এর স্ক্রিপ্টিং ইঞ্জিন হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। সর্বোপরি, মাইক্রোসফটও বর্তমানে লিনাক্স উন্নয়নে পরোক্ষভাবে ভূমিকা রাখছে।
কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন যে বিষয়টি আমাকে অবাক করেছে, তা হল, বিভিন্ন ধরনের বৃহৎ কোম্পানিসমূহ লিনাক্স ফাউন্ডেশনের নেতৃত্বে ওপেন সোর্স প্রজেক্টসমূহকে উন্নয়নের জন্য কি দৃঢ়ভাবেই না ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।
শুধু ২০১৩ সালেই লিনাক্স ফাউন্ডেশন AllSeen Alliance কে একত্রিত করেছে ইন্টারনেট বিষয়ক কাজ করার জন্য, ওপেন সোর্স বায়োলজিক্যাল রিসার্চের জন্য OpenBEL; সবধরনের সফটওয়্যার ডিফাইনড নেটওয়ার্কের (SDN) জন্য OpenDaylight; এবং Xen প্রজেক্ট ও KVM ভার্চুয়ালাইজেশনের জন্য Open Virtualization Alliance ও Xen virtualization।
এবং এটা শুধুমাত্র লিনাক্স ফাউন্ডেশনই করছে না । ফেসবুকের ওপেন কম্পিউট প্রজেক্ট ওপেন সোর্স পদ্ধতিকে ডেটা সেন্টারে নিয়ে এসেছে। এপাচি Hadoop এর মত প্রজেক্টকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে ব্যাপক ডেটা প্রসেসিং এর জন্য এবং সার্চের জন্য Lucene এবং Solr।
এ সব বড় প্রজেক্টের মাঝে একটি সাধারন মিল বিদ্যমান আর তা হলো- পূর্বের শত্রুসম প্রতিযোগীদেরকে একত্রে মিলেমিশে কাজ করানো। তাই বলে ভাববেন না, কোম্পানিগুলি ওপেন সোর্সের জাদু বা নৈতিক ভাবাদর্শের কারনে এ সমস্ত কাজ করছে ।  বরং তারা ওপেন সোর্স ব্যবহার করছে এ কারনে যে, এটি তাদেরকে সব থেকে কম খরচে সব চেয়ে কোয়ালিটি সম্পন্ন সফটওয়্যার তৈরির সুযোগ দিচ্ছে । যৌক্তিকভাবে বলা যায় যে, কোম্পানিসমূহ সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা বিচ্ছিন্নভাবে অসম্পূর্ন, মালিকানাধীন প্রোগ্রাম তৈরির বিপরীতে ব্যবসা সফল একীভূত ওপেন সফটওয়্যার তৈরী করবে।

২. ক্রোমবুকের উত্থান

গুগলের লিনাক্স চালিত ক্রোমবুক কতটা জনপ্রিয় সেটা নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে তবে এটা সত্য যে, ক্রোম বুক খুব দ্রুত ব্যবহারকারীর দৃষ্টি আকর্ষন করতে সমর্থ হয়েছে।
OEM হিসেবে ডেল ছিল সর্বশেষ কোন কোম্পানি যারা ক্রোম ব্যবহার করে কোন মেশিন বাজারজাত করতো না । কিন্তু তারাও সিদ্ধান্ত নিয়েছে ২০১৪ সালের শুরুতে ক্রোমবুক নিয়ে আসার। বৃহৎ ইলেক্ট্রনিক্স কোম্পানি এলজি ক্রোম ওএস এর জন্য একটি নতুন রূপ নিয়ে হাজির হয়েছে যার নাম ক্রোমবেস। এটি একটি অল-ইন-ওয়ান পিসি যা ক্রোম ওএস কে ২১.৫ ইঞ্চি ও ১৯২০ x ১০৯০ ফুল এইডি রেজুলেশনের একটি বড় ডিসপ্লেতে সমন্বিত করেছে।
এটাও মনে হচ্ছে, এন্ড্রয়েড নিজেই ডেস্কটপের দিকে ধাবিত হতে শুরু করেছে। রিপোর্ট অনুযায়ী PC Plus এ ধরনের মেশিন তৈরির পথে অনেকখানি এগিয়েছে। এ ধরনের ল্যাপটপে উইন্ডোজ ৮.১ ও এন্ড্রয়েড উভয়ই থাকবে যা আগামী জানুয়ারীতে লাগ ভেগাসের সিইএস এক্সপোতে উম্মোচিত হতে যাচ্ছে।
উইন্ডোজ ৮.১ তার পূর্ববর্তী ভার্সনসমূহের মত দ্রুত মার্কেট শেয়ার অর্জনের লক্ষ্যে এক বন্ধুর পথ পরিক্রমায় রত এবং মাইক্রোসফটকে এখন সার্ফেস নিয়ে নিজস্ব পিসি পার্টনারদের সাথে প্রতিযোগিতা করতে হচ্ছে, তাই এটা মোটে ও অবাক করার মত বিষয় নয় যে, লিনাক্সের ডেস্কটপ মার্কেটে প্রতিযোগিতা এর নিজস্ব হার্ডকোর ব্যবহারকারীদের সীমানা পেরিয়ে অবশেষে আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে।

৩. স্টিম ওএসঃ মূলধারার লিনাক্স গেমিং এর আগমন

একটি প্রধান গেমিং কোম্পানী হিসেবে Valve এর স্টিম ওএস রিলিজ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন হয়ে দেখা দিয়েছে ডেস্কটপ মার্কেটে। মূলতঃ এটি একটি ডেবিয়ান নির্ভর লিনাক্স যা লিনাক্স পিসি গেমিং এর উদ্দেশ্যেই বিশেষভাবে ডিজাইনকৃত।
Valve এর এরকম সিদ্ধান্তের অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য অন্যান্য কোম্পানীর মত নয় যারা লিনাক্স ও ওপেন সোর্সে বিনিয়োগ করছে তাদের লিনাক্সের প্রতি উষ্ণ, আন্তরিক মনোভাবের কারনে। বছরের শুরুতে Valve এর বিলিয়নিয়ার চিফ এক্সিকিউটিভ গেব নিওয়েল মতামত দিয়েছেন এভাবে - “না, Valve তার নিজস্ব ডেস্কটপ লিনাক্স এবং স্টিম মেশিন, ডেডিকেটেড গেমিং কনসোল রিলিজ করেছে এ জন্য যে পিসির জগতে উইন্ডোজ ৮ একটি বড়সড় বিপর্যয় নিয়ে এসেছে।”
Valve এর মতে লিনাক্স হচ্ছে কম্পিউটিংয়ের ভবিষ্যত।

৪. ক্লাউড কম্পিউটিং- লিনাক্স যেখানে সর্বত্র

ডেস্কটপে আপনি লিনাক্সের উত্থান নিয়ে সন্দিহান থাকতে পারেন তবে ক্লাউড কম্পিউটিংএ লিনাক্সের প্রভাব নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। মাইক্রোসফটের Azure প্লাটফর্ম বাদে সকল প্রধান সফটওয়্যার প্লাটফর্ম যেমন এ্যামাজনের EC2  ক্লাউড, গুগল Compute Engine এবং বিভিন্ন OpenStack সফটওয়্যারসমূহ – সবাই লিনাক্স এবং ওপেন সোর্স সফটওয়্যার এর উপর নির্ভরশীল।  জনপ্রিয়তা লাভের কারনেই Azure  প্লাটফর্মে আপনি উবুন্টু, সেন্টওএস, Suse লিনাক্স এন্টারপ্রাইজ সার্ভার এবং OpenSuse চালাতে পারেন।
আপনি যদি আইটির জন্য শীঘ্রই ক্লাউড ব্যবহার করার পরিকল্পনা করে থাকেন তবে জোর সম্ভাবনা রয়েছে লিনাক্স ব্যবহারের। তাই হিসাবটা বর্তমানে খুব সহজ এবং এটা অনুমান করে নিতে হয় না।

৫. মোবাইল কম্পিউটিংয়ে রাজত্বঃ এন্ড্রয়েড 

ডেস্কটপ বাদেই, এন্ড্রয়েড আকারে লিনাক্স, বর্তমানে ব্যবহারকারীদের মাঝে রাজত্ব শুরু করে দিয়েছে। স্মার্টফোন জগতে এ্যাপল আইওএস এর থেকে একটি সহজ অগ্রগামীতা দিয়ে এন্ড্রয়েড তার যাত্রা শুরু করেছে। এ বছরের মাঝামাঝি এন্ড্রয়েড ট্যাবলেটের মার্কেট শেয়ার আইপ্যাড লাইনকে এক প্রকার উড়িয়ে দিয়েছে বলা যায়।  এন্ড্রয়েড বর্তমানে এক নাম্বার মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম। বর্তমানে একমাত্র বাস্তবতা হচ্ছে এন্ড্রয়েড, আইওএস এর পরে তৃতীয় স্থানটি হবে কার।
প্রকৃতপক্ষে পিসির মার্কেট ক্রমশঃ সংকুচিত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায়, ভবিষ্যতে সকল ধরনের প্লাটফর্মের মধ্যে এন্ড্রয়েড হতে পারে সব থেকে বেশী ব্যবহৃত অপারেটিং সিস্টেম।
সংক্ষেপে এগুলিই ছিল এ বছরের উল্লেখযোগ্য ঘটনা সমূহ। অর্থাৎ এটি এমন একটি বছর যেখানে লিনাক্স জগতে আলোড়ন সৃষ্টিকারী তেমন কোন ঘটনা নেই কিন্তু লিনাক্স ও ওপেন সোর্স সকল ধরনের কম্পিউটিংয়ে তার সফল পদচারনা ও প্রভাব বিস্তার অব্যাহত রেখে চলেছে। লিনাক্স ফাউন্ডেশনের চিফ এক্সিকিউটিভ জিম জেমলিন সম্প্রতি ঘোষনা দিয়েছেন, ২০১৩ সাল ছিল  "Linux on Everything"
তিনি পুরোপুরি সঠিক বলেছেন এবং সামনের বছরগুলিতে আমরা আরও বেশী লিনাক্সকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করতে দেখবো।
মূল লিংক- http://www.zdnet.com/5-top-linux-and-op … 000024621/

0 comments:

Post a Comment